/

দেশে আইনের শাসন নেই: এরশাদ

thereporter

প্রকাশিতঃ 1:44 am | October 16, 2017

দেশে আইনের শাসন নেই বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তিনি বলেন, আজকে খবরের কাগজে দেখলাম ৯ বছরের একটি মেয়ে আত্মহত্যা করছে। কিন্তু কেন এ আত্মহত্যা? দেশে আইনের শাসন নেই বলেই মানুষ নিজের হাতে আইন তুলে নিচ্ছে। নারী নির্যাতন, হত্যা, ধর্ষণ বেড়ে যাচ্ছে।

শনিবার দুপুরে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে জাতীয় পার্টি ও এর কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির যৌথ সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেন, জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় গেলে দেশে চাঁদাবাজি, প্রশাসনে দলীয়করণ, খুন, গুম, নারী নির্যাতন সব বন্ধ হয়ে যাবে।

এরশাদ বলেন, ‘বিএনপি ১০ বছর ক্ষমতার বাইরে। তারা আগামী নির্বাচনে অংশ নেবে কিনা জানি না। কিন্তু জাতীয় পার্টি ২৬ বছর ক্ষমতায় নেই। তারপরও আমরা আগামী নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করবো এবং সেটা ক্ষমতায় যাওয়া জন্য।’

গতকাল শুক্রবার তিন টাকার ডিমের জন্য মানুষের লংকাকাণ্ডের কথা তুলে ধরে সাবেক এ রাষ্ট্রপতি বলেন, মানুষ ডিমের জন্য যা করছে তাতে বোঝা যায় আমরা কী মধ্যম আয়ের দেশে বসবাস করছি, নাকি দারিদ্রতার মধ্যে বসবাস করছি।

রোহিঙ্গাদের ফেরত যাওয়ার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা মনে হয় না মিয়ানমার আর রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিবে। সরকার কূটনেতিকভাবে যতই চেষ্টা করুক কোনও লাভ হবে না। তবে তাদের পুনর্বাসনে আমরা সরকারকে সব ধরনের সহযোগিতা করতে প্রস্তুত আছি।

আগামী নির্বাচন কঠিন হবে উল্লেখ করে এরশাদ বলেন, আমি নেতাকর্মীদের বলবো এ কঠিন নির্বাচনের প্রস্তুতি গ্রহণ করতে। আমরা তিনশত আসনে প্রার্থী দিবো। ক্ষমতা যাওয়ার কোনও বিকল্প নেই। জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় এসেছে দেখলে শান্তিতে মরতে পারবো।

অনুষ্ঠানে দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ করে সংসদের বিরোধীদলীয় নেত্রী ও জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ বলেন, পার্টিকে আরও শক্তিশালী করতে হবে। আমাদের এখন যে সাংগঠনিক অবস্থা যদি আরও উন্নতি করতে পারি তাহলে জাতীয় পার্টি আগামীতে ক্ষমতায় যেতে পারবে। নেতাকর্মীদের কাছে এরশাদের জন্য দোয়া চান রওশন এরশাদ।

আগামী ১৬ অক্টোবর চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর যাচ্ছেন জানিয়ে এইচ এম এরশাদ বলেন, ‘আমি হয়তো তোমাদের মাঝে আর ফিরে নাও আসতে পারি। তোমরা আমার জন্য দোয়া করবে। গ্রামে গ্রামে জাতীয় পার্টির উন্নয়ন তুলে ধরবে। পার্টিকে আরও শক্তিশালী করবে।’

যৌথ সভায় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির নেতা জি এম কাদের, রুহুল আমিন হাওলাদার, জিয়াউদ্দিন বাবলু, মসিউর রহমান রাঙ্গা প্রমুখ।